সুদানে হামদকে প্রধানমন্ত্রী পদে পুনর্বহাল | আন্তর্জাতিক

সুদানে হামদকে প্রধানমন্ত্রী পদে পুনর্বহাল | আন্তর্জাতিক

<![CDATA[

সুদানে অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে প্রাণঘাতী রাজনৈতিক অস্থিরতার পর দেশটির প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আবদাল্লা হামদকে পুনর্বহাল করেছে সামরিক বাহিনী। যদিও সেনাবাহিনীর সঙ্গে যে কোনো সমঝোতাকে অস্বীকার করে বিপুল মানুষ রাস্তায় নেমে এসেছেন।

হামদকের সঙ্গে সামরিক নেতা জেনারেল ফাত্তাহ আল-বুরহানের সই হওয়া সমঝোতা অনুসারে একটি অন্তবর্তীকালীন সময়ের জন্য বেসামরিক নেতৃত্বাধীন টেকনোক্র্যাট সরকার গঠন করার কথা রয়েছে। ২০১৯ সালের বিদ্রোহে একনায়ক ওমর আল-বাসির ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর হামদকে প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

সমঝোতায় রাজনৈতিক বন্দিদেরও মুক্তি দেওয়ার কথা রয়েছে। গণতন্ত্রপন্থীরা এ চুক্তির বিরোধিতা করে পুরোপুরি বেসামরিক সরকারের দাবি জানিয়েছেন। গেল ২৫ অক্টোবর সামরিক অভ্যুত্থানের পর বিক্ষোভে কয়েক ডজন বিক্ষোভকারীর নিহত হওয়া নিয়েও তাদের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে।

সামরিক বাহিনীর সঙ্গে চুক্তির পর প্রতিবাদ আন্দোলনে ‘নায়ক’ খ্যাতি পাওয়া হামদক এখন অনেকের কাছে ভিলেনে পরিণত হয়েছেন। ‘হামদক বিপ্লবকে বিক্রি করে দিয়েছেন’ বলে স্লোগান দিতে দেখা গেছে বিক্ষোভকারীদের।

আর প্রতিবাদকারীদের অন্যতম সংগঠন সুদানিজ প্রফেশনালস অ্যাসোসিয়েশনস (এসপিএ) এই চুক্তিকে ‘বিশ্বাসঘাতকতা’ বলে আখ্যায়িত করেছে। রাজধানী খার্তুম, দুই শহর ওমদুরমান ও বাহরিতে কয়েক হাজার মানুষ নির্ধারিত বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন।

তাদের ছত্রভঙ্গ করে দিতে কাঁদানে গ্যাস ও গুলি ছুড়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। এতে ১৬ বছর বয়সী এক কিশোর নিহত হয়েছেন। খার্তুমের ওমর ইব্রাহিম নামের ২৬ বছর বয়সী এক বিক্ষোভকারী বলেন, হামদক আমাদের হতাশ করেছেন। এখন রাস্তায় নেমে আসা ছাড়া আমাদের সামনে কোনো বিকল্প নেই।

অক্টোবরের অভ্যুত্থানের পর থেকে বিক্ষোভ করে যাওয়া বেসামরিক বিভিন্ন গোষ্ঠী সামরিক বাহিনী যেন রাজনীতি থেকে পুরোপুরি সরে যায় সেই দাবিও জানিয়ে আসছিল।

আরও পড়ুন: সুদানে ফের ক্ষমতায় ফিরছেন হামদক

২০১৯ সালে ওমর আল-বশিরকে উৎখাতের পর গণতন্ত্রের পথে অগ্রযাত্রাকে ব্যহত করে গত ২৫ অক্টোবর সুদানের সেনাবাহিনী ক্ষমতা পুরোপুরি নিজেদের হাতে তুলে নিয়েছিল। তারা হামদককে গৃহবন্দি করেন।

সামরিক বাহিনী হামদকের মন্ত্রিপরিষদকে বিলুপ্ত ঘোষণা করে ও বসিরকে উৎখাতের পর সামরিক বাহিনীর সঙ্গে ক্ষমতা ভাগাভাগি চুক্তির আওতায় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা বেসামরিক কর্মকর্তাদেরও গ্রেপ্তার করে।

ওই অভ্যুত্থানের পর হামদক সামরিক বাহিনীর সঙ্গে যে কোনো আলোচনার পূর্বশর্ত হিসেবে রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি ও অভ্যুত্থান পূর্ববর্তী ক্ষমতা-ভাগাভাগি পুনর্বহাল চান।

অক্টোবরের অভ্যুত্থানের পর দেশটিতে সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ হয়েছে। সুদানের গণতন্ত্রে উত্তরণে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে আসা পশ্চিমা দেশগুলো অক্টোবরের অভ্যুত্থানের নিন্দা জানিয়েছিল। তারা উত্তর আফ্রিকার দেশটিকে যে অর্থনৈতিক সহায়তা দিয়ে আসছে, তার কিছু স্থগিতও করে দেয়।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *