শাহ আলমের ভাগ্যেও জানাজা মিলেনি, পুলিশ প্রহরায় দাফন | বাংলাদেশ

শাহ আলমের ভাগ্যেও জানাজা মিলেনি, পুলিশ
প্রহরায় দাফন | বাংলাদেশ

<![CDATA[

কুমিল্লা সিটির ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ সোহেল হত্যা মামলার প্রধান আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত শাহ আলমের ভাগ্যেও জানাজা জুটল না। গতকাল বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) বিকেলে পুলিশের পাহারায় পরিবারের সীমিত লোকের উপস্থিতিতে টিক্কারচর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

এর আগে গত সোমবার (২৯ নবেম্বর) রাতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত  এজাহারভুক্ত অপর দুই আসামি সাব্বির হোসেন ও মো. সাজনকে জানাজা ছাড়াই দাফন করা হয় একই কবরস্থানে।

পুলিশ জানায়, নিহতদের নিজ এলাকায় মরদেহ নিয়ে গেলে সমস্যা হতে পারে- এই আশঙ্কায় সিটি কর্পোরেশন নিয়ন্ত্রিত নগরীর টিক্কারচর কবরস্থানে তাদের দাফনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়। কিন্তু অপেক্ষা করেও জানাজার নামাজ পড়াতে কোনো মাওলানা এগিয়ে আসেননি। এ সময় এলাকার লোকজন বিক্ষুব্ধ থাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পরে জানাজা ছাড়াই মাগরিব নামাজের কিছু আগে শাহ আলমের মরদেহ দাফন করা হয়। কবরস্থান এলাকায় পরিবারের সীমিত সংখ্যক সদস্য উপস্থিত ছিল।

কোতয়ালী মডেল থানার চকবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক কায়সার হামিদ বলেন, অনেকক্ষণ অপেক্ষা করার পরও জানাজায় অংশ নিতে কেউ না আসায় সাব্বির ও সাজনের মতোই শাহ আলমের মরদেহও জানাজা ছাড়াই দাফন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: বাল্যবিয়ে: বরের পাশে কনে সেজে ভাবি, রক্ষা হলো না কাজীরও

এর আগে সোমবার গভীর রাতে নগরীর সংরাইশ এলাকায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে কাউন্সিলর সোহেল হত্যা মামলার এজাহার থাকা ৩ নম্বর আসামি মো. সাব্বির হোসেন (২৮) ও ৫ নম্বর আসামি মো. সাজন (৩২) নিহত হয় বলে দাবি করে পুলিশ। 

সাব্বির নগরীর সুজানগর এলাকার রফিক মিয়ার ছেলে এবং সাজন নগরীর সংরাইশ এলাকার কাকন মিয়ার ছেলে। আর শাহ আলম বউবাজার এলাকার মৃত জানু মিয়ার ছেলে।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *