লঞ্চে অগ্নিকাণ্ড: একজন সংগ্রামী জাহানারার মৃত্যু | বাংলাদেশ

লঞ্চে অগ্নিকাণ্ড: একজন সংগ্রামী জাহানারার মৃত্যু | বাংলাদেশ

<![CDATA[

জীবনের হিসাব বড়ই এলোমেলো। কখনো এমনিতেই মিলে যায়। আবার কখনও শত চেষ্টায়ও তা মেলে না। ঢাকা থেকে বরগুনাগামী এমভি অভিযান লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত বরগুনার জাহানারা বেগমও মেলাতে পারেননি জীবনের হিসাব।

অভাব অনটনের এক পর্যায়ে স্বামী সন্তান নিয়ে খানিকটা ভালো থাকার আশায় এক জীবনে দুবাই পাড়ি দিয়েছিলেন জাহানারা বেগম। বছর দু’য়েক পরেই সব হারিয়ে দেশে ফিরতে হয় তাকে।

রাজধানী ঢাকায় একটি কিন্ডারগার্টেন স্কুলে স্বল্প বেতনে চাকরি নেন জাহানারা বেগম। স্বামী বশির আহমেদ স্বপন চাকরি নেন অপর একটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের গাড়িচালক হিসেবে। দীর্ঘ প্রায় ২০ বছর ধরে তিল তিল করে এগিয়ে চলে তাদের জীবন ও জীবিকা।

কর্মী ছাঁটাইয়ের কারণে স্বামী বশির আহমেদ স্বপনের চাকরি চলে গেলে তারা দু’জনেই সিদ্ধান্ত নেন নিজ জেলা বরগুনায় ফেরার। সারা জীবনের সঞ্চিত অর্থ দিয়ে স্ত্রী জাহানারা বেগমের সহযোগিতায় আটটি বিদেশি গরু কেনেন বশির।

এরপর বাড়ি ফেরার স্বপ্ন নিয়ে দুই মেয়ে শারমিন আর শাপলাকে সঙ্গে করে এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে ওঠেন জাহানারা। সঙ্গে ছিল বড় মেয়ে শারমিনের দুই শিশু সন্তানও। দেড় বছরের আছিয়া এবং চার বছরের আব্দুল্লাহ।

আরও পড়ুন: পোড়া লঞ্চে ছবি হাতে নিখোঁজদের খোঁজে স্বজনরা

কিন্তু না। শেষ পর্যন্ত জীবনের হিসাব আর মেলেনি জাহানারার। এমভি অভিযান লঞ্চের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আর বাড়ি ফেরা হলো না জাহানারার। বাড়ি ফেরা হলো না জাহানারা ও তার বড় মেয়ে শারমিন এবং বড় আদরের নাতি আব্দুল্লাহ এবং নাতনি আসিয়ার (শারমিনের ছেলে মেয়ে)।

ভাগ্যক্রমে নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়েও বেঁচে যায় জাহানারার সাঁতার না জানা অপর মেয়ে শাপলা। মোহাম্মদপুর মকবুল হোসেন ডিগ্রি কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকের পরীক্ষার্থী সে।

লঞ্চ দুর্ঘটনায় নিহত জাহানারার মৃতদেহ শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) রাতে বুঝে পেয়েছেন তার স্বামী বশির আহমেদ স্বপন। মেয়ে শারমিন এবং শারমিনের এক পুত্র ও এক কন্যা সন্তান এখনও নিখোঁজ।

জাহানারার স্বপ্নের সেই গরুর ফার্ম যেমন ছিল তেমনি আছে। জীবন নদীর তীরে এসেই যেন তরি ডুবে গেল জাহানারার। জীবনের সব লেনদেন অমীমাংসিত রেখেই চলে গেলেন জাহানারা।

এমভি অভিযান লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিহত সকল যাত্রীর জীবনেই জাহানারার মতোই গল্প ছিল, স্বপ্ন ছিল, ছিল দুঃখ সুখের নানা উপাখ্যান।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *