বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া | রাজনীতি

বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া | রাজনীতি

<![CDATA[

আবারও উত্তপ্ত রাজপথ। বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ কেন্দ্র করে সোমবার (২২ নভেম্বর) বেশ কয়েকটি স্থানে নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়েছে।

নাটোরে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করায় পুলিশ বাধা দিলে বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়েন বিক্ষোভকারীরা।

পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এতে পরিস্থিতি আরও বিক্ষিপ্ত হলে একপর্যায়ে টিয়ার শেল ও ফাঁকা গুলি চালাতে বাধ্য হয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ সময় ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় আহত হন অন্তত ২০ জন। সদর থানার আহত ওসি মনছুর রহমান এবং একজন সাংবাদিককে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা বলেন, রাস্তা অবরোধ করে তারা সমাবেশ করার চেষ্টা করেন। তাদের নিষেধ করলে পুলিশের ওপর আক্রমণ চালায়। এতে কয়েকজন পুলিশ সদস্য এবং সাংবাদিক আহত হন। পরে আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি।    

একই পরিস্থিতি খুলনাতেও। অনুমতি না থাকায় সড়কে অবস্থান করতে নেতাকর্মীদের নিষেধ করে পুলিশ। এরপরও রাস্তায় বিক্ষোভ মিছিল ও সভা সমাবেশ করেন মহানগর বিএনপি দল ও সহযোগী সংগঠন। একপর্যায়ে উচ্ছৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি হলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আবারও তাদেরকে সরে যেতে বলে। এ সময় নেতাকর্মীরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ লাঠিপেটা করে ছত্রভঙ্গ করে। ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় সময় টেলিভিশনের সাংবাদিকসহ তিনজন ফটোসাংবাদিক আহত হন।

আরও পড়ুন: ঢাকাকে বিচ্ছিন্ন করার হুমকি ফখরুলের

খুলনা মহানগর বিএনপি সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, এ সরকার ফ্যাসিস্ট। তার চান না যে বেগম জিয়ার সুচিকিৎসা হোক।  

এদিকে বরিশালে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির ডাকা বিক্ষোভে আন্দোলনরত নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের হাতাহাতি হয়। সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে সমাবেশ রাস্তায় না করার অনুরোধ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। পরে সদর রোড থেকে সরে গিয়ে দলীয় কার্যালয় প্রাঙ্গণে কর্মসূচি করেন বিএনপির নেতাকর্মীরা।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার শারমিন সুলতানা রাখী বলেন, যোগাযোগব্যবস্থার সমস্যা হচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্তিতির অবনতি হবে। সে কারণে তাদের শান্তিপূর্ণভাবে আলাদা আলাদাভাবে সমাবেশ আসার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।  

এ ছাড়া অনুমতি না থাকায় বরগুনায়ও পণ্ড হয় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ। আটক করা হয় তিনজনকে।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *