ফ্যানের সঙ্গে ঝুলছিল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর লাশ | বাংলাদেশ

ফ্যানের সঙ্গে ঝুলছিল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর লাশ | বাংলাদেশ

<![CDATA[

হাজী মুহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ১৭তম ব্যাচের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের মাধবী নামের এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের অদূরে পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন  জয়ন্তী ছাত্রীনিবাস থেকে ওই শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

সহপাঠীরা জানান, বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে ওই শিক্ষার্থীর রুম ভেতর থেকে বন্ধ ছিল। প্রায় চার ঘণ্টা পর জানালা দিয়ে তার ঝুলন্ত মরদেহ দৃশ্যমান হলে ছাত্রীনিবাসের মালিক এসে দরজায় তালা আটকে দেয়। পরে এই খবর ছড়িয়ে পড়লে সন্ধ্যা ৭টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী এসে ফ্যানের সাথে ওড়না দিয়ে ঝুলন্ত মরদেহ নামিয়ে রাখে।

এরপর পুলিশকে খবর দেয়া হলে তারা ঘটনাস্থলে এসে  রাত সাথে সাড়ে আটটার দিকে ময়না তদন্তের জন্য এম্বুলেন্সে করে লাশ নিয়ে যান।

এদিকে তার মৃত্যুর ঘটনায় ছাত্রীনিবাসের মালিক যুক্ত আছে দাবি করে দিনাজপুর-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করেছেন সহপাঠীরা।

আরও পড়ুন: অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকাকে মেঘনায় ভাসিয়ে দিলেন প্রেমিক!

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সন্ধ্যায় নিজ কক্ষের ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচানো অবস্থায় মাধবীর লাশ দেখতে পেয়ে থানায় খবর দেন ছাত্রীনিবাসের অন্য ছাত্রীরা। পুলিশ এসে সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে লাশ উদ্ধার করে।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাফফর হোসেন বলেন, এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. মামুনুর রশিদ বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। সহপাঠীর মৃত্যুর সংবাদে শিক্ষার্থীরাও এসেছে। রাত সাড়ে ৯টার দিকে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের সড়কে অবস্থান নিয়ে দিনাজপুর-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে।

সহপাঠীদের অভিযোগ, মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে দুপুরে। কিন্তু ছাত্রীনিবাসের মালিক সে তথ্য গোপন করে ওই কক্ষটি তালাবন্ধ করে রাখেন। ঘটনার পর থেকে তিনি পলাতক।

মাধবীর গ্রামের বাড়ি পঞ্চগড়। তার বাবার নাম সত্যন্দ্রনাথ দত্ত। কী কারণে ওই ছাত্রী আত্মহত্যা করেছেন তা এখনও জানা যায়নি।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *