পাবিপ্রবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের হাতাহাতি, কক্ষ ভাঙচুর | বাংলাদেশ

পাবিপ্রবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের হাতাহাতি, কক্ষ ভাঙচুর | বাংলাদেশ

<![CDATA[

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সিনিয়র জুনিয়র দুই গ্রুপের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। একপক্ষ সিনিয়র ছাত্রনেতা নুরুল্লাহর কক্ষ ভাঙচুর করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে। তবে কক্ষ ভাঙচুরের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন প্রতিপক্ষের ছাত্রনেতারা। মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) দুপুরে এই ঘটনা ঘটে।

পাবিপ্রবি ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক নুরুল্লাহ প্রক্টর বরাবর লিখিত আবেদনে অভিযোগ করেন, বঙ্গবন্ধু হলের ১২৯ নম্বর রুমে বৈধ শিক্ষার্থী হওয়ায় সেখানে আমি আমার কর্মী সমর্থকদের নিয়ে অবস্থান করি। এ সময় অতর্কিত ভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিহ্নিত মাদক সেবী মিনহাজ প্রান্ত, শেখ রাসেল, তৌসিকুর রাভা, সৌরভসহ ২০/২৫ জনের একটি গ্রুপ জিআই পাইপসহ আমাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় তারা আমাদের মারধর করে আমাদের আহত করে।

এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিল এবং হলের সিসিটিভি ফুটেজ রয়েছে বলেও তিনি দাবি করেন ওই অভিযোগ পত্রে।

তিনি মুঠোফোনে আরও বলেন, দীর্ঘদিন ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় গত ২১ অক্টোবর হল খুলে দিলে বৈধ শিক্ষার্থীরা হলে আসতে শুরু করেন। তারা বহিরাগত নিয়ে হলে প্রবেশ করলে আমরা এর প্রতিবাদ জানাই। তারা বিভিন্ন সময় হলে মাদক বিক্রি করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। আর সমস্ত অপকর্মের বিরুদ্ধে আমরা সোচ্চার হলেই তারা আমাদের উপর ক্ষুব্ধ হয়ে এই হামলা চালান। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বিচার দাবি করেন তিনি।

অপরপক্ষের যুগ্ম সম্পাদক সাইদুজ্জামান সৌরভ বলেন, তেমন কিছু হয়নি, রুম ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটেনি, সামান্য কথা কাটাকাটি হয়েছিল মাত্র। নিজেরাই রুম ভাঙচুর করে আমাদের উপর দোষারোপ করছেন বলে জানান তিনি। আর মাদক সেবন বা বিক্রি করার প্রশ্নই ওঠে না। নুরুল্লাহ গ্রুপের লোকজন আমাদের হেয় করতেই এ ধরনের অভিযোগ করছেন বলেও দাবি তার।

আরও পড়ুন: বিয়েতে মাংস বেশি চাওয়ায় সংঘর্ষ, ক্ষিপ্ত হয়ে স্ত্রীকে তালাক

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফরিদুল ইসলাম বাবু বলেন, ক্যাম্পাসে সিনিয়র জুনিয়রদের মধ্যে সামান্য একটু ঝামেলা হয়েছিল। তাৎক্ষণিকভাবে উভয় পক্ষের সাথে কথা বলে সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

এ দিকে হামলার প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা তাৎক্ষণিক ভাবে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেন। প্রতিবাদ মিছিলটি পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার চত্বরে এসে সমাবেশে মিলিত হয়। এ সময় বক্তারা অবিলম্বে হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি, চাঁদাবাজ-মাদকসেবীদের ছাত্রলীগে ঠাই হবে না বলেও হুশিয়ারি দেন।

এ সময় বক্তব্য দেন পাবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মাহমুদ কামাল তুহিন, নিংকন হোসেন, মাহমুদুল হাসান, তৌহিদুল ইসলাম রানা, যুগ্ম সম্পাদক নুরুল্লাহ, দপ্তর সম্পাদক সেহজাদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক অনুপপ চক্রবর্তী, সদস্য অলক সরকার প্রমুখ।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *