নিউইয়র্কে অগ্নিকান্ড: নাতনীর পর নানাকেও বাঁচানো গেল না | আন্তর্জাতিক

নিউইয়র্কে অগ্নিকান্ড: নাতনীর পর নানাকেও বাঁচানো গেল না | আন্তর্জাতিক

<![CDATA[

দীর্ঘ এক মাস মৃত্যুর সাথে লড়ে করে অবশেষে হার মানলেন মো. শামসুল হক।

৮৫ বছর বয়সী এই বৃদ্ধ গত ২ অক্টোবর নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডের এলমন্টে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। 

 

এর আগে মো. হকের কিশোরী নাতি ১৪ বছর বয়সী রিফাত আরা আলী সায়মা একই ঘটনায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান।  নিহত শামসুল হক নিউইয়র্কের পরিচিত মুখ ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলীর শশুর। 

 

তাঁর বাড়ি বাংলাদেশের কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে। এদিকে, শামসুল হকের জানাজা স্থানীয় সময় আজ শুক্রবার বাদ জুমা জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টার মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয়েছে। জানাজায় অংশ নেওয়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ জানিয়েছে তাঁর পরিবার।

 

আরও পড়ুনঃ  করোনার-মুখে-খাওয়ার-ট্যাবলেট-অনুমোদন-যুক্তরাজ্যের

 

প্রসঙ্গত, গত ২ অক্টোবর শনিবার ভোরে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে ছাই হয়ে যায় বাংলাদেশি মোহাম্মদ আলীর বাড়ি। দুই দিন হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে লড়ে মারা যায় তাঁর একমাত্র মেয়ে সায়মা (১৪)। সায়মা নবম গ্রেডের ছাত্রী ছিল।

 

এ ঘটনায় তার একমাত্র ভাই দ্বাদশ গ্রেডের ছাত্র রাইম সাদমান জিম (১৭) ও নানা মো. শামসুল হক (৮৫) গুরুতর অগ্নিদগ্ধ হন। অবশেষে একমাস মৃত্যুর সাথে লড়ে বুধবার মারা যান শামসুল হক। নানী দিল আফরোজও (৭১) প্রচন্ত ধোঁয়ায় জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। 

 

আহত অপর দুজনের অবস্থা কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। অগ্নিকাণ্ডের সময় সায়মার বাবা ও মা বাড়ির বাইরে কাজে ছিলেন। 

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *