দেশের পার্বত্য অঞ্চলগুলোতে টিকাদান কার্যক্রম শুরু | বাংলাদেশ

দেশের পার্বত্য অঞ্চলগুলোতে টিকাদান কার্যক্রম শুরু | বাংলাদেশ

<![CDATA[

করোনা প্রতিরোধে সমতলের পাশাপাশি দেশের দুর্গম পার্বত্য অঞ্চলগুলোকেও শতভাগ টিকার আওতায় আনার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। এরই অংশ হিসেবে সীমান্তবর্তী দুর্গম এলাকাগুলোর বাসিন্দাদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করোনার ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় মাত্র ৩ ঘণ্টায় রাঙ্গামাটির জুড়াছড়ির বগাখালী এলাকার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর দেড় হাজার মানুষকে আজ প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে।

বগাখালী বিজিবি বিওপি হেলিপ্যাডে ভ্যাকসিন ও স্বাস্থ্যকর্মীদের নিয়ে বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার পৌঁছানো অনেক আগে থেকেই অপেক্ষা করছিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এরপর হেলিকপ্টার অবতরণের পর শুরু হয় টিকাদান কার্যক্রম।

স্কুল মাঠের এক প্রান্তে সেনা সদস্যরা টিকা নিতে আগ্রহীদের নাম নিবন্ধন শুরু করে। আরেক পাশে স্বাস্থ্যকর্মীরা ভ্যাকসিন প্রয়োগ চালিয়ে যায়। এভাবে ৩ ঘণ্টারও কম সময়ে ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে দেড় হাজারের বেশি মানুষ।

আরও পড়ুন: স্কুলশিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার তারিখ ঘোষণা

একেতো দুর্গম এলাকা, এর মাঝে দূরবতী হওয়ায় অনেকেই ১২ থেকে ২৪ ঘণ্টা পায়ে হেঁটে কেন্দ্রে এসেছেন ভ্যাকসিন নিতে। ভারতের মিজোরাম সীমান্তের মাত্র আধ কিলোমিটারের মধ্যে টিকা কেন্দ্র হওয়ায় কড়া নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন বিজিবি সদস্যরা।

জুড়াছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. অনন্যা চাকমা বলেন, ‘প্রত্যন্ত এলাকায় টিকা দেওয়া কষ্টসাধ্য ছিল। তবে আমরা এই প্রত্যন্ত অঞ্চলে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বিজিবি এবং প্রশাসনের সহযোগিতায় আমরা এখানে টিকা দিতে এসেছি।’

প্রত্যন্ত এ এলাকায় টিকাদান কর্মীদের পেয়ে উচ্ছ্বসিত ছিলেন স্থানীয়রা। বিশেষ করে করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করায় সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞ তারা।

এর আগের দফায় ভারত ও মিয়ানমার সীমান্তবর্তী দুর্গম বিলাইছড়ির বড়তলী এলাকায় বসবাসকারী বাংলাদেশি নাগরিকদের টিকা দেওয়া হয়।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *