‘জ্যোৎস্না কেন বনবাস’ নিয়ে ২২ বছর পর ফিরছেন অঞ্জু ঘোষ | বিনোদন

'জ্যোৎস্না কেন বনবাস' নিয়ে ২২ বছর পর ফিরছেন অঞ্জু ঘোষ | বিনোদন

<![CDATA[

বেদের মেয়ে জ্যোৎস্না আমি ফাঁকি দিয়েছে, এই লাইন কানে যেতেই বুঝে নেওয়া যায় কার কথা বলছি। তিনি সবার প্রিয় দুই বাংলার তারকা অঞ্জু ঘোষ। ১৯৮৯ সালে মুক্তি পাওয়া এই এক সিনেমা তাকে নিয়ে গিয়েছিল খ্যাতির শীর্ষে।

ঢালিউডে অভিনয় করার পর টলিউডেরও একাধিক ছবিতে অভিনয় করেছিলেন অভিনেত্রী। তবে একসময় হঠাৎ করেই সিনেমা থেকে ইস্তফা নিয়ে নিয়েছিলেন তিনি। তিনি থাকতে শুরু করেন কলকাতায়। 

আরও পড়ুন: পোশাকের জন্য নেতিবাচক মন্তব্যে নাস্তানাবুদ জয়া

তবে এবার প্রায় ২২ বছর পর আবারও সিনেমার পর্দায় ফিরতে যাচ্ছেন এই তারকা।  বৃহস্পতিবার (০৭ জানুয়ারি) এফডিসিতে তাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সিনেমা জগতে বিশেষ অবদানর জন্য আজীবন সদস্য করা হয়েছে অভিনেত্রীকে। বাংলাদেশের ছবি ‘বেদের মেয়ে জ্যোৎস্না’য় অভিনেতা ছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন। তিনিও সেই সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। সেখানেই অঞ্জু ঘোষ ও ইলিয়াস কাঞ্চনের নতুন ছবি ‘জ্যোৎস্না কেন বনবাসে’র ঘোষণা হয়েছে। এই ছবির প্রযোজনায় নাদের খান। অঞ্জু ঘোষকে নিয়ে আরও একটি ছবির ঘোষণা করেন শহীদুল হক খান। 

আরও পড়ুন: ১৪ ডিগ্রিতে ১২ ঘণ্টা ভিজলেন সোহানা সাবা

‘বেদের মেয়ে জ্যোৎস্না’ সিনেমা মুক্তি পাওয়ার ছয় বছর পর বাংলাদেশ থেকে কলকাতায় চলে আসেন অঞ্জু। ২২ বছর পরে নিজের দেশে ফিরে তিনি জানান, দেশ ছাড়ার বিষয়ে তার মধ্যে কোনো অভিমান বা ক্ষোভ নেই। অভিনেত্রীর কথায়, ‘আমি বাংলাদেশে ফিরব। আমাকে ফিরতেই হবে। যেসব আনন্দের খবর শুনছি আর ইন্ডাস্ট্রির এমন অবস্থা, তাতে আমি ফিরে আসব।’ অঞ্জু আরও বলেন, ‘আমার কোনোদিনও কারোর প্রতি ক্ষোভ ছিল না। ফলে বিশেষ কোনও কারণ বা ব্যক্তির কারণে আমি দেশ ছেড়ে যাইনি। মজার বিষয় হলো, আমি কলকাতায় দু’দিনের জন্য গিয়েছিলাম। 

সেখানে আমার মা থাকতেন। দু’দিনের জন্য গিয়ে সেখান থেকে আর বের হতে পারছি না। এরপর সেখানে সিনেমার পর সিনেমা করতে লাগলাম। তবে এর পেছনে আর কোনো কিন্তু নেই।’

দুই বাংলা মিলিয়ে মোড ৩৫০টির বেশি ছবিতে অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী। এদিন বাংলাদেশের প্রতি নিজের ভালোবাসার কথা জানান নায়িকা। অভিনয় না করলেও এখনকার ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কে নিয়মিত খোঁজ রাখেন তিনি।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *