ক্যানসারের আশঙ্কা আছে কি না, নখই বলে দেবে | স্বাস্থ্য

ক্যানসারের আশঙ্কা আছে কি না, নখই বলে দেবে | স্বাস্থ্য

<![CDATA[

শরীরে কোনো রোগ বাসা বাঁধছে কি না, তা বলে দেয় মানুষের নখ। হ্যাঁ, বিশেষজ্ঞরা এমনটাই জানাচ্ছেন। তারা বলছেন, নখের কিছু বৈশিষ্ট জানান দেয়, শরীরে কিছু রোগের লক্ষণ। এর মধ্যে অন্যতম একটি হলো ক্যানসার। কীভাবে বুঝবেন?

বিশেষজ্ঞদের মতে, স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার জন্য নখ শরীরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। নখ সহজেই ভেঙে পাতলা হয়ে যাওয়া সাধারণ বিষয় নয়। নখ ক্যারোটিন নামক পুষ্টির সমন্বয়ে গঠিত। শরীরে পুষ্টির অভাবের কারণে ক্যারোটিন ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যদি আপনার নখের রং পরিবর্তন হয়, আকৃতির বদল বা বৃদ্ধির গতি অস্বাভাবিক হয়, তবে এর অর্থ আপনার শরীরে কোনো সমস্যা রয়েছে।

আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নখের রং অনেক কথাই বলতে পারে। নখের রং বিভিন্ন সময়ে বদলে যায় এবং তখনই ইঙ্গিত দেয় যে কোনো গুরুতর অসুখ বাসা বাঁধছে শরীরে।

চিকিসৎকরা বলছেন, যে কোনো রোগের পূর্ব লক্ষণ থাকে। যেমন চোখ দেখে অনেক চিকিৎসক বলে দিতে পারেন জন্ডিস হয়েছে কি না, তেমনই অন্যান্য রোগের ক্ষেত্রেও এ কথা সত্যি। সে সবেরও পূর্ব লক্ষণ রয়েছে। এক একটি রোগ এক এক উপসর্গ দেখে বোঝা যায়। যেমন নখের অবস্থা দেখেও কিছু রোগ চেনা যেতে পারে।

আরও পড়ুন: ডায়াবেটিস রোগীর খাদ্য তালিকায় যে কারণে ড্রাগন ফল রাখা উচিত

অনেক সময় নখ মোটা, ভারী হয়ে যায়। হালকা হলুদভাব দেখা দেয়। তখন বুঝতে হবে ছত্রাকের সংক্রমণ হচ্ছে। থাইরয়েডের সমস্যা থাকলে নখ তাড়াতাড়ি ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এমন কোনো সমস্যা দেখলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।

নখের রঙের কোনো বদল এলে কখনো তা অবহেলা করা উচিত নয়। কারণ তা ক্যানসারের বার্তাও নিয়ে আসতে পারে। চিকিসৎকরা বলছেন, ত্বকের এক ধরনের ক্যানসার ধরা পড়ে নখের রঙের পরিবর্তন দেখেই। প্রথমে নখের তলায় একটি কালো দাগ দেখা দিতে পারে। তার পর ধীরে ধীরে নখের রং উধাও হয়ে যায়। নখের চার ধারে কালচে ভাব দেখা দিতে পারে। এমন হলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। নয়তো পরিস্থিতি আরও কঠিন হতে পারে। ধীরে ধীরে নখের জোর কমে যায়। ভেঙে যেতে থাকে নখ। অনেকটা পাতলাও হয়ে যায় নখ। ফলে নখ ভেঙে যাওয়া বা নখের রং বদলে যাওয়ার সমস্যা অবহেলা করলে একেবারেই চলবে না।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *