কারেনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর হামলায় থাই সীমান্তে হাজারো মানুষ | আন্তর্জাতিক

কারেনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর হামলায় থাই সীমান্তে হাজারো মানুষ | আন্তর্জাতিক

<![CDATA[

রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের জেরে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা ঢলের পর এবার কারেন প্রদেশে হামলার শিকার হয়ে থাইল্যান্ড সীমান্তে ভিড় করছেন হাজার হাজার মানুষ।

থাইল্যান্ড সীমান্তবর্তী কারেন প্রদেশে সেনাবাহিনীর বিমান হামলার জেরে পালাতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। এমন পরিস্থিতিতে আবারও উদ্বেগ দেখা দিয়েছে আন্তর্জাতিক মহলে। দেশটির মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলছে, খুব শিগগিরই শরণার্থীদের ফিরিয়ে না নিলে আবারো অস্থিতিশীল হয়ে উঠবে মিয়ানমার।

সপ্তাহখানেক ধরেই উত্তপ্ত মিয়ানমার সীমান্ত পরিস্থিতি। দেশটির সীমান্তবর্তী কারেন প্রদেশে নতুন করে বিমান হামলা ও ভারী গোলাবর্ষণ চালিয়েছে জান্তা বাহিনী।

মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থী সংগঠন কারেন ন্যাশনাল ইউনিয়ন কেএনইউ জানায়, বৃহস্পতিবার রাতে প্রদেশটিতে অন্তত দুবার বিমান হামলা চালিয়েছে সামরিক বাহিনী। শুক্রবারও লে কায় কাও শহরে গোলা বর্ষণ করা হয়।

পরপর বেশ কয়েকটি বিমান হামলায় নতুন কোরে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে জনমনে। প্রাণ বাঁচাতে থাইল্যান্ড সীমান্তে আশ্রয়ের খোঁজে ভিড় করছেন হাজার হাজার মানুষ।

এমন পরিস্থিতিতে কারেন যোদ্ধারা লে কায় কাও শহরকে ‘নো ফ্লাই জোন’ ঘোষণার দাবি জানিয়েছে জাতিসংঘের কাছে।

আরও পড়ুন: মিয়ানমারে খনিতে ভূমিধস, শতাধিক শ্রমিক নিখোঁজের আশঙ্কা

এদিকে, মিয়ানমার সেনাবাহিনী দেশটিকে অস্থিতিশীল করতেই এমন উপর্যুপরি হামলা চালাচ্ছে বলে দাবি দেশটির মানবাধিকার সংস্থাগুলোর। খুব শিগগিরই থাইল্যান্ডে ঢুকে পড়া শরণার্থীদের ফিরিয়ে নেয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন তারা।

এর আগে, ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাবাহিনীর হামলা-নিপীড়নের শিকার হয়ে সীমান্ত পেরিয়ে ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *