করোনার ভয়াবহতায় মহাযুদ্ধ চালিয়েছে পুলিশ: আইজিপি | বাংলাদেশ

করোনার ভয়াবহতায় মহাযুদ্ধ চালিয়েছে পুলিশ: আইজিপি | বাংলাদেশ

<![CDATA[

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার প্রথম দিকে যখন ভাইরাসটি নিয়ে আতঙ্কে স্বজনরা তাদের স্বজনদের ছেড়ে যাচ্ছিল, সে ভয়াবহ সময়টিতে জীবনের পরোয়া না করে বাংলাদেশের পুলিশ মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। একে মহাকাব্যিক যুদ্ধ বলে আখ্যা দেন আইজিপি।

তিনি বলেন, করোনা এক মহাকাব্যিক যুদ্ধ। ভয়াবহতার সময় পুলিশ সদস্যরা নিজেদের সুরক্ষার কথা চিন্তা না করেই আগে সেবা দিয়েছেন। এ ছাড়া ওই সময়টাই দৈনিক ৭০০ থেকে ৮০০ জন করে পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত ২৬ হাজার পুলিশসদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। একজন এসপিসহ ১০৭ পুলিশ সদস্য মারা যায়। এ অবস্থায় আহতদের মধ্যে খাবার পৌঁছানো নিয়মিত টহল পণ্যবাহী ট্রাক গুলোতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সব মিলিয়ে এক মহাযুদ্ধ চালিয়ে গেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) রাজধানীর রাজারবাগে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটরিয়ামে কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী বাংলাদেশ পুলিশ সদস্যদের কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ সরকার অনুমোদিত করোনা ইনসিগনিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে উন্মোচন অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে আইজিপি এসব কথা বলেন।

করোনা ইনসিগনিয়া আনুষ্ঠানিকভাবে উন্মোচনের পর আইজিপি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ইনসিগনিয়া পরিয়ে দেন। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একে একে আইজিপি, অতিরিক্ত আইজি এবং পুলিশ সদস্যদের করোনা ইনসিগনিয়া পরিয়ে দেন।

আইজিপি বলেন, বিদেশি হাসপাতালের সঙ্গে পুলিশ হাসপাতাল করোনা চিকিৎসা নিয়ে গবেষণা করেছে। আমরা প্রথম প্লাজমা থেরাপি প্রয়োগ করেছি। করোনা চিকিৎসায় পুলিশ হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মী সবাই অতিমানবীয় কাজ করেছেন। যত সহজে এ কথাগুলো বলেছি, তা করা খুব সহজ ছিল না।

আরও পড়ুন: করোনাকালে পুলিশ এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী 

করোনা ইনসিগনিয়া প্রদান প্রসঙ্গে পুলিশপ্রধান বলেন, র‌্যাব যখন সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত করেছে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তখনকার র‌্যাব প্রধান হিসেবে আমাকে বলেছিলেন, আপনারা এত বড় একটা কাজ করলেন, আমি আপনাদের জন্য কিছু করতে চাই। তিনি আমাদের আর্থিক অনুদান দিতে চেয়েছেন, সনদপত্র দিতে চেয়েছেন। তখন আমরা মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে প্রস্তাব দিলাম, আমাদের একটি ইনসিগনিয়া প্রদান করেন, যাতে আমরা মর্যাদার সঙ্গে এটা পরতে পারি। পরে উনি আমাদের ইনসিগনিয়া প্রদান করেছিলেন। এবারও করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ পুলিশ সদস্যদের অনন্য সাধারণ অবদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আমাদের করোনা ইনসিগনিয়া প্রদান করেছে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন অতিরিক্ত আইজি (এফঅ্যান্ডএল) এস এম রুহুল আমিন। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত আইজি (এঅ্যান্ডআই) ড. মো. মইনুর রহমান চৌধুরী, ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম, র্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ-আল মামুন, অতিরিক্ত আইজি, ঢাকার পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের প্রধান ও ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাসহ পুলিশ সদস্যরা।

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *