উন্নয়নের ধারা নতুন প্রজন্ম অব্যাহত রাখবে, আশা প্রধানমন্ত্রীর | বাংলাদেশ

উন্নয়নের ধারা নতুন প্রজন্ম অব্যাহত রাখবে, আশা প্রধানমন্ত্রীর | বাংলাদেশ

<![CDATA[

স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ হঠাৎ হয়ে যায়নি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, পরিকল্পিতভাবে কাজ হয়েছে বলেই এ অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন সম্ভব হয়েছে।

ভবিষ্যতে এ ধারা নতুন প্রজন্ম অব্যাহত রাখবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

 

রোববার (২ জানুয়ারি) সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের স্বীকৃতি প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি জানান, উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণকে টেকসই করতে জাতীয় কৌশল প্রণয়নের কাজ শুরু হয়েছে।

দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় থাকায় উন্নয়ন দৃশ্যমান এবং দেশের মানুষ এর সুফল পাচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিজয়ের ৫০ বছরে স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে উন্নীত হওয়া বড় অর্জন।

 

আরও পড়ুন:  নতুন বছরে সূচকের উত্থান দিয়ে শুরু

মাত্র একযুগে পাল্টে যাওয়া বাংলাদেশের এখন গর্ব করার মতো গল্প তৈরি হয়েছে। অবকাঠামো আর সামগ্রিক উন্নয়নে এখন সুসময় আর সক্ষমতার হাতছানি আগামী দিনের। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি সবক্ষেত্রেই পরিবর্তনের ছোঁয়ায় এখন ব্যবধান কমেছে নগর ও গ্রামের। তৃণমূলের মানুষও এখন স্বপ্ন দেখছেন ঘুরে দাঁড়ানোর নিজ সম্বলকে পুঁজি করে এগিয়ে যাওয়ার। সব সূচকে এগিয়ে তলাবিহীন ঝুড়ির কটাক্ষ উপেক্ষা করে রাইজিং টাইগার হয়ে ওঠা লাল সবুজের বাংলাদেশকে গত নভেম্বরে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল হিসেবে চূড়ান্ত স্বীকৃতি দিয়েছে জাতিসংঘ।

 

আনুষ্ঠানিকভাবে সেই স্বীকৃতির রাষ্ট্রীয় উদযাপন করা হলো আজ -রোববার সকালে। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত বর্ণাঢ্য এই অনুষ্ঠানে ভার্চুয়াল মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী যোগ দিয়েছিলেন গণভবন থেকে।

তিনি বলেন, এই উত্তরণ সম্ভব হয়েছে দেশের সবার ঐকান্তিক পরিশ্রম আর সহযোগিতায়।

অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রেখে আগামী দিনে এই স্বীকৃতির সম্মান রক্ষায় সুনির্দিষ্ট কৌশলপত্র প্রণয়নে সংশ্লিষ্টদের তাগিদ দেন প্রধানমন্ত্রী।

নতুন প্রজন্মকে আগামী দিনের দায়িত্ব নেওয়ার উপযোগী করে তোলা হচ্ছে বলেও জানান শেখ হাসিনা। নানা মহলের হুমকি আর রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে দেশের জন্য কাজ করে যাওয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন বঙ্গবন্ধুকন্যা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত ছিলেন। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালসহ সংশ্লিষ্টরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এ অনুষ্ঠানে সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, সরকারের প্রতি জনগণের আস্থা, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও সরকারের ধারাবাহিকতায় দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

 

স্পিকার বলেন, তিনটি মানদণ্ড পূরণ করে বাংলাদেশের স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ হয়েছে। এটিকে জাতিসংঘ মিরাকল বলে অভিহিত করেছেন। বঙ্গবন্ধু যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে সংবিধান প্রণয়ন করেছিলেন। তিনি মাত্র সাড়ে তিন বছর সময় পেয়ে দেশে উন্নয়নের ভিত রচনা করেছিলেন। সেই ভিত থেকে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তারই উত্তরসূরি শেখ হাসিনা। বলেন, ২০০৯ সালে দারিদ্র্য ছিল ৪০ শতাংশ, সেখান থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ২১ শতাংশ। শিক্ষার হার বেড়েছে। ২০৪১ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশ হবে। দেশ থেকে মঙ্গা দূর হয়েছে। আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি।
 

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *