‘আসামি অজ্ঞাত’ দেখিয়ে ১৪ দিন পর সার্জেন্টের মামলা নিলো পুলিশ | বাংলাদেশ

‘আসামি অজ্ঞাত’ দেখিয়ে ১৪ দিন পর সার্জেন্টের মামলা নিলো পুলিশ | বাংলাদেশ

<![CDATA[

রাজধানীর বানানী এলাকায় গাড়িচাপায় বিজিবির অবসরপ্রাপ্ত সদস্য মনোরঞ্জন হাজং আহতের ঘটনার ১৪ দিন পর মামলা নিয়েছে পুলিশ।

বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নুরে আজম মিয়া বৃহস্পতিবার (১৬ ডিসেম্বর) মামলা দায়েরর সত্যতা নিশ্চিত করেন। মনোরঞ্জন হাজংয়ের মেয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সার্জেন্ট মহুয়া হাজং বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

গত ২ ডিসেম্বর রাত সোয়া দুইটার দিকে রাজধানীর চেয়ারম্যান বাড়ি সংলগ্ন ইউটার্নের মুখে দুর্ঘটনার শিকার হন মনোরঞ্জন হাজং। যে গাড়ির ধাক্কায় তিনি আহত হন, সেই গাড়িটি এক বিচারপতির ছেলে চালাচ্ছিলেন।

ঘটনার পর সেখান থেকে বিচারপতির ছেলেকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। গাড়িটিও জব্দ করা হয়। কিন্তু কিছু সময় পরই ছাড়া পেয়ে যান ওই বিচারপতির ছেলে।

আরও পড়ুন: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, ২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে

ঘটনার পর থেকে মামলার অভিযোগ নিয়ে ঘুরছিলেন তার মেয়ে ট্রাফিক সার্জেন্ট মহুয়া হাজং। কিন্তু মামলা করতে পারছিলেন না। শেষ পর্যন্ত ‘অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি’ দেখিয়ে তিনি মামলাটি করতে পেরেছেন। মামলা নম্বর ২৫।

মামলা নিতে সময় লাগার কারণ জানতে চাইলে গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. আসাদুজ্জামান সংবাদমাধ্যমে বলেন, অভিযোগ যাচাই করার জন্য কিছুটা দেরি করা হয়েছে। যাচাই-বাছাই শেষে মামলা নেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সার্জেন্ট মহুয়া হাজং তার বাবার শারীরিক পরিস্থিতির অবস্থা জানান। বলেন, ‘ডান পায়ে কয়েক দফা অপারেশন করা হয়েছে। কিন্তু তাতে কোন লাভ হয়নি, শেষ পর্যন্ত ডান পা কেটে ফেলা হয়েছে। তিনি এখন বারডেম হাসপাতালে ভর্তি আছেন।’

]]>

সূত্র: সময় টিভি

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *